পড়াশোনা শেষে যখন আমরা চাকরির বাজারে সিভি জমা দেয়ার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ি তখন সবারই প্রায় একই স্কিল থাকে সিভিতে। পড়াশোনা+এক্সট্রা কারিকুলার অ্যাকটিভিটিসসহ প্রায় সবই একই থাকে। হাজারো সিভির মধ্যে নিজেকে আলাদা করা সত্যিই কঠিন একটা কাজ। আমি ৩/৪দিন আগে ফিল নাইটের শু ডগ বায়োগ্রাফি পড়া শেষ করে। সেই বইয়ের শেষ দিকে স্কিল নিয়ে দারুণ একটা ঘটনা পড়েছি।

ফিল নাইট নাইকির প্রতিষ্ঠাতা। নিজের কোচ বাওয়ারম্যানকে নিয়ে তিনি নাইকি প্রতিষ্ঠা করেন। ফিল নিজে ছিলেন অ্যাকাউন্টিংয়ে গ্র্যাজুয়েট, সঙ্গে ছিল স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ। ফিল নাইকির আগে ব্লু রিবন নামে যে জুতার কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সেখানে ফিলের বন্ধু-বান্ধব ঘরণার লোকজনই কাজ করতো। ফিল যখন নাইকি শুরু করেন তখন তিনি নানান দুনিয়ার লোক নেয়া শুরু করেন। ফিল আইন পড়া কিংবা অ্যাকাউন্টিং পাশ করা লোকজনকেই বেশি চাকরিতে নিতেন। ফিল তার বইয়ে এর পেছনের কারণটি এভাবে লিখেছেন, ‘যে অ্যাকাউন্টিং বা আইন পাশ করে সে জীবনের অনেকটা সময় পরিশ্রম করে তা আয়ত্ব করে। আর যে শুধু মার্কেটিং কিংবা সাধারণ বিষয়ে পড়াশোনা করে তার আয়ত্বের বিষয়ের গভীরতা অন্যদের চেয়ে কম। অ্যাকাউন্টিং বা আইন পাশ করা কেউ যদি মার্কেটিং কিংবা কমিউনিকেশনে কাজ করে তাহলে তার কিন্তু বেসিক স্কিল তাকে ভালো পেশাজীবি হতে সহায়তা করে।’

নাইকি কিংবা ওয়ালমার্টের বড় বড় ডিপার্টমেন্টে কিন্তু এই বেসিক স্কিলওয়ালা লোকগুলোই বেশি কাজের সুযোগ পান। নাইকির মার্কেটিংয়ে অ্যাকাউন্টিং পড়ুয়ারা বেশি গুরুত্ব পায় যতটা না পায় শুধু মার্কেটিং পড়ুয়ারা।
আমাদের দেশেও কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে এমনটা দেখা যায়। বিভিন্ন টেলিভিশনে অনেক সাংবাদিকদের চিনি যারা আসলে পড়েছেন অন্য বিষয়ে, অ্যাকাউন্টিং কিংবা বিবিএয়ের অন্য কোন বিষয়ে; তারা কিন্তু সাংবাদিকতাকে তার অন্য বিষয়ে পড়ার কারণে আরও বেশি স্কিলড উপায়ে ক্যারিয়ার হিসেবে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। অনেক আরজে আছেন যারা ডাক্তার। বুয়েট পাশ অনেক প্রকৌশলী কিন্তু সাংবাদিক লেখক! (যেমন আনিসুল হক, মুনির হাসান!)

ফিল নাইটের বই পড়ে যা বুঝলাম, যে বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ হয়, সেই বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়ার পাশাপাশি অন্য কোন ট্র্যাকে কিছু করার সুযোগ আছে কিনা তা খুঁজে বের করা যেতে পারে। বিষয়টা অনেকটা এমন, আপনি চিকিৎসক, জাতীয় ক্রিকেট দলের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুযোগ আছে কিনা তা খুঁজে বের করা। কিংবা আপনি পড়ছেন ফিন্যান্সে, অ্যাপোলো হাসপাতালের সিইও কিংবা অ্যাডমিনে যোগ দেবেন কিনা তার বুদ্ধি বের করা। বর্তমানে চাকরির দুনিয়ার যে অবস্থা, যে বিষয়ে ডিগ্রি পাবেন তা দিয়েই ক্যারিয়ার গড়া কিন্তু একটু বেশিই কঠিন। অন্য রঙে নিজেকে রাঙাতে একটু ট্রিক্স খাটতে এক সার্টিফিকেটে অন্য দুনিয়াতে আবেদন করার উপায় বের করতে পারেন কিন্তু।

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 2,793 views. Thank You for caring my happiness.

Comments

comments