বেঁচে থাকার জন্য সব সময়ই আমাদের ‘পিচ’ করতে হয়। পিচ শব্দটি বাংলা পরিমণ্ডলে বেশ নতুন হলেও প্রয়োগ বেশ পুরাতন। জীবনে যাই করেন না কেন, কোন না কোন সময় ‘পিচ’ করতে হয়। পিচের সরাসরি কোন বাংলা নেই। কিন্তু এটাকে ‘বিক্রয় সংশ্লিষ্ট যোগাযোগ কৌশল’ হিসেবে প্রকাশ করা যায়। কিছু বিক্রি করতে চাইলে আপনাকে পিচ করতেই হবে। আপনি হয়তো জানেনই না সেই ছোট বেলা থেকে পিচ করে আসছেন আপনি। একটি কলম বিক্রি কিংবা ইন্টার্ভিউ বোর্ডে ‘ইন্ট্রডিউস ইয়োরসেলফ’ প্রশ্নের উত্তরে আমাদের কলম বা নিজেকে বিক্রি করতে হয়, পুরো প্রক্রিয়াই পিচ।
জীবনটা আসলে হাজার হাজার পিচের একটি সিরিজ-মাত্র। প্রেমিকার সামনে কিংবা বসের সামনে পিচ করছেন, করতেই হবে।
বেশির ভাগ-ক্ষেত্রেই আমরা পিচ আর স্পিচের মধ্যে পার্থক্য করতে পারি না। স্পিচ হচ্ছে হাতি, আইমিন জাতির উদ্দেশ্য ভাষণ। ভাষণ দেয়া হয় ভাসিয়ে দেয়ার জন্য। আর পিচ হচ্ছে সরল অংক, দুই লাইনে ১৪০ শব্দে সব কথা শেষ। ১৪১ হলেও আপনি শেষ। বেশির ভাগ সময়ে আমরা ১৪১কে ছাপিয়ে ব্রায়ান লারার ৫০১ রানকে হারিয়ে দেই কথার বন্যায়।
আমার নিজের পিচের মাত্রা খুব ভালো না। যে কারণে নিজের জন্যই এই পোস্টটি লিখছি।
যেভাবে পিচ করতে হয় দারুণভাবে:
নিজের আগ্রহ না, অন্যরা কি চায় সেটাই সব যেকোনো কথার শুরুতেই আমরা, আমি অমুক-আমি তমুক; আমি এই করি বা “This is my business and here’s what we do” লাইন দিয়ে কথা শুরু করি। যা বেশ পচা একটা লাইন। এসব লাইন কেউ শোনে না। প্রথমেই শুরু করতে হবে, অন্যরা কি চায় তা নিয়ে। কারও কাছে নিজেকে বিক্রি করতে চাইলে তার অফিসের কোন সমস্যায় আপনার মত মানুষ দরকার তা নিয়ে শুরু করুন। কাউকে আপনার ব্যবসায় বিনিয়োগ করাতে চাইলে, তার বিনিয়োগ কেন নিরাপদ হবে তা নিয়ে কথা শুরু করুন।
কোন প্রতিক্রিয়া নাই মানে আসলে ‘না’
আপনার পিচে যদি খুব বেশি ভ্যালু, খুব বেশি পয়েন্টস থাকে-তাহলে ধরে নিতে হবে আপনার কথা কেউ শুনবেই না। আপনার কথা কেউ গায়ে নিবে না। গায়ে নিবে না মানে হচ্ছে আপনার কথা কেউ শুনছে না, আর তা হচ্ছে না। যখনই দেখবেন কেউ শুনছে না, তখনই আপনাকে থেমে যেতে হবে। একটু বিরতি দিয়ে অন্য কোনভাবে পিচ শুরু করতে হবে। গুগল সার্চ করতে হবে
যার সঙ্গে কথা বলছেন, যাদের পিচ করবেন তাদের সম্পর্কে কতটা জানেন? ৩০ সেকেন্ডের গুগল সার্চ করে দেখুন। যে ফুড ডেলিভারি ব্যবসা নিয়ে আগ্রহী না, তাকে ফুড ডেলিভারি ব্যবসায় বিনিয়োগের অনুরোধ কেন করবেন? সব কথা প্রথমেই নয়
পিচ প্রথম প্রেম না। সব কথা, সব কিছু প্রথম মিটিংয়ে বলা যাবে না। প্রথম ইমেইল বা টেক্সটে সব আইডিয়া শেয়ার করা ঠিক হবে না।
অ্যাভোয়েড ওভারসেলিং
এক বছরের মধ্যে পৃথিবীর সব দরিদ্রতা দূর করে দিব।
বোল্ড ভিষন ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু বেশি কখনই না। Sell the dream. Don’t oversell the dream. সবকিছুতে সম্পর্ক আনুন
আপনি কিছু একটার মাধ্যমে যার সঙ্গে কথা বলছেন তার সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করুন। সিএনজি ড্রাইভার যদি আপনার এলাকার হয়, তাহলে আপনার যাত্রা একটু দারুণ হয় না?
শর্ট ও শার্প
Short and sharp is key.
তিন বাক্যে কথা বলা শেষ করুন! ১৪০ শব্দে সব বলা শিখুন। যত কম কথা, তত স্পেসিফিক, তত কাজের।
নিজেকে ফ্যান হিসেবে কল্পনা করুন
মনে করুন আপনি মার্টিন লুথার কিংয়ের ভক্ত। তার মাধ্যমেই আপনি অনুপ্রাণিত, তার ফলোয়ার আপনি। যাকে বলছেন সেও কিংয়ের ভক্ত। তাহলে বিষয়টা কেমন দাড়ায়? যাকে পিচ করছেন তার পছন্দ জানুন।
সব কিছু হাস্যকর-ভাবে সরল করুন
সরলভাবে যেকোনো কিছু করার চেষ্টা করে দেখুন তো? কত কঠিন লাগে? -- Stay cool. Embrace weird.
Total 127 views. Thank You for caring my happiness.

Comments

comments