ম্যাকেঞ্জি ট্যুর থেকে যা শিখলাম

ঈদের ছুটিতে সবাই যায় কক্সবাজার কিংবা ব্যাংকক, বা ভারতে। আমি গিয়েছিলাম ভারতে, তবে আগ্রা বা কাশ্মীরে না-নয়াদিল্লীতে। কনসালটিং ফার্ম ম্যাকেঞ্জির ইন্ডিয়া অফিসে ট্যুর+ট্রেনিং+ওয়ার্কশপ=মাইন্ডক্র্যাপিং এক্সপেরিয়েন্স। এবছরের (২০১৮) জুলাই মাস থেকে আমি রিটারমেন্টে চলে আসছি বলে এখন সব এক্সপেরিয়েন্স ভাবি। সেই পাল্লাকে আরও ভারী করেছে এবারের ট্যুর।

আমাদের ট্রেনিং ছিল ৬ ঘণ্টার, ২ দিন ধরে। মোট ১৬জন ছিল, যার মধ্যে একমাত্র বিদেশের লোক হচ্ছি আমি। যেহেতু ইনহাউজ ট্রেনিং তাই তেমন কঠিন কিছু ছিল না। প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্ট আর প্রবলেম সলভিং নিয়ে কাজ ছিল বেশি। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই এই পোস্ট।

১. চাকা আবার আবিষ্কার করবো?

আমরা কোন সমস্যা সমাধান করতে গেলে নিজের থেকে সমাধানের চেষ্টা করে অনেক সময় নষ্ট করি প্রায়ই। ম্যাকেঞ্জি মাইন্ড নামের একটি বই আছে। সেখানে বলা আছে, সারা দুনিয়ার ম্যাকেঞ্জির যত কনসালটেন্ট আছে সবাই ইনহাউজ কিছু মডেল ব্যবহার করে। (যেমন বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপের অনেক মডেল জনপ্রিয়) সমস্যা সমাধানের জন্য প্রথমেই সমাধান না খুঁজে সমস্যাকে বিশ্লেষণ করতে হবে, বিশ্লেষণ করলেই ডটগুলোর কোথায় সমস্যা তা জানা যাবে। যত তথ্য তত সমস্যাকে ঘায়েল করা সম্ভব। অ্যাপোলো ১৩ সিনেমা যারা দেখেছেন তারা জানেন কেন অ্যাপোলো ১৩ চাঁদে পা রাখে নাই। অ্যাপোলো ১১ চাঁদে নামার আগে ১০বার চেষ্টা করা হয়, ১০ বারে ১০ রকম এরর ছিল, সেই এররগুলো থেকে মিস্টেক কমাতেন প্রোগ্রামাররা, যত কম এরর তত সমস্যা সমাধানে সাফল্য।

২. মেন্টাল মডেলিং

দুনিয়ার যে কোনো কর্পোরেট সমস্যা সমাধানে কার্যকর ২০টার মতো মডেল আছে। এটা অনেকটা ক্রিকেট খেলার আউটের মত-১৩ উপায়ে আউট করা সম্ভব। আমরা যখন জানবো যে কোন সমস্যা সমাধানে ২০টা মডেল আছে তখন সমাধান বেশ কার্যকর মনে হবে।

৩. পড়তে হবে

আইআইটি কিংবা আইআইএম গ্র্যাজুয়েট হলেও ভারতের টেকনিক্যাল লোকজন অনেক পড়ে। সিরিজ বই বলে একটা বিষয় শিখলাম। এটা অনেকটা ১০১, ১০২, ১০৩…. টাইপের বই। আমরা হুজুগে প্রথমে যদি ১০৫ লেভেলের বই পড়ি তাহলে বেসিকে সমস্যা থাকবে।

৪. টুলস নির্ভর হওয়া যাবে না

প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্টে আমরা বেশি টুলস নির্ভর হই, কিন্তু টুলসের লজিকগুলো শিখি না-যা আমাদের ক্যারিয়ারে ভবিষ্যতে বিপদ তৈরি করে। আমেরিকায় ম্যানেজমেন্ট কনসালটেন্টরা ৪০ বছর হলেই বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক কিংবা কোম্পানিগুলোর বোর্ডে বসে যায়, কারণ কি? কারণ হচ্ছে তারা টুলসের প্রয়োগ যেমন জানে তেমন লজিকও জানে। খুব সহজে বলা যায়, আমরা বয়স চিনি ২০ কিংবা ৪০ হিসেবে, এটাকে সংখ্যা হিসেবে প্রথমেই শিখি না আমরা।

৫. টিম ডেভলপমেন্ট

পৃথিবীর বড় বড় কনসালটিং ফার্মগুলো একটা ডেস্কে কাজ করে না। কেউ ইজরায়েলে বসে ডেটা সংগ্রহ করে ভারতের অফিস থেকে ডেটা নিয়ে মডেল তৈরি করে। ভার্চুয়াল টিম তৈরি করে নিজেকে ঠান্ডা রাখতে হবে।

 

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 172 views. Thank You for caring my happiness.

Comments

comments

Aashaa Zahid

Hi! Myself Aashaa Zahid. Basically, I'm a Transporter of Happiness. An average son of a great parent. An average man. You could knock me, text me, ping me for nothing!

Leave a Reply