৫২টা বডি ল্যাঙ্গুয়েজ শব্দ শিখুন, ভড়কে দিন অন্যকে

বডি ল্যাঙ্গুয়েজের উপরে দারুণ একটা বই পড়ছি। সেই বইটায় ৯২টা সারকাস্টিক বডি ল্যাঙ্গুয়েজের কথা বলা আছে। তার মধ্য থেকে ৫২টা তো ফাটাফাটি, প্র্যাকটিস করা শুরু করে দিচ্ছি আজকেই। সেই ৫২টা বডি ল্যাঙ্গুয়েজের শব্দ নিয়েই এই পোস্ট।
১. দ্য ফ্ল্যাডিং স্মাইল: গ্রুপ মিটিংয়ে কখনই প্রথমে নিজে হাসবেন না। একটু তাকিয়ে স্থির হয়ে তাকাবেন, তারপরে হাসবেন।
২. স্টিকি আইস: আপনার সামনে যে কথা বলবে তার চোখে আঠার মত তাকিয়ে থাকুন। সে সময়ে দুনিয়া উল্টো গেলেও তার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকুন। কথা শেষ হলেও তাকিয়ে থাকুন।
৩. ইপক্সি আইস- গ্রুপ মিটিংয়ে কারও বিপক্ষে অবস্থান করার সময় অন্য কেউ কথা বললেও আপনার প্রতিপক্ষের দিকে তাকিয়ে থাকুন। কে কথা বলছে সেটা ব্যাপার না, ওই লোকের দিকে তাকিয়ে থাকুন।
৪. দড়ি কামড়ের পজিশনে দাঁতের অবস্থান: মনে করুন, আপনি কোন দড়ি কামড়ে ঝুলে আছেন। শুধু দাঁত দিয়ে দড়ি কামড়ে আছেন। মুখের পেশি তখন খুবই আঁটোসাঁটো হয়ে যাবে, এমন অবস্থায় থাকুন। কেউ মেজাজ দেখাতেই আসবে না!
৫. বিগ-বেবি পিভট: কোন মিটিংয়ে যে বস তাকে ছাড়া অন্যদের দেখে হাসুন। এক হাসিতেই “I think you are very, very special.” ফিলিং দিয়ে দিন।
৬. “আরেহ, বন্ধু”: পরিচিত, অপরিচিত যার সঙ্গেই দেখা করুন না কেন এমন ভাবে কথা বলুন যেন সে আপনার পুরাতন কোন বন্ধু।
(বাকি ৪৫টা কবে লিখব জানি না।)

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 2,598 views. Thank You for caring my happiness.

সোলো-অন্ট্রাপ্রেনিউররা যেভাবে ‘একাই’ মিলিয়ন ডলারের ব্যবসা করে

“How do founders build ten million and hundred million dollar businesses”-কোরাতে এই লাইনটা পড়ে এই লেখাটা দাঁড়ানো যায় কিনা ভাবলাম।

বিভিন্ন জায়গায় গুগলিং করে যাহা জানলাম তাহা হইল, নিজের আগামীকালটা যারা দেখতে পায় তারাই নাকি সামনে যেতে পারে।
কোথায় জানি দেখেছিলাম, ৬৪ ভাগ মিলিয়নেয়ার্সই সোলো, একা সব দাঁড় করিয়েছেন। বিষয়টা আসলে একা না, উদ্যোক্তারা অনেক মানুষ নিয়েই কাজ করেন। ব্যাপারটা জাহাজ চালানোর মত, ক্যাপ্টেন অনেকগুলো কাজের মানুষকে নিয়েই কাজ করে সামনে এগিয়ে যান, কিন্তু নেতৃত্ব দেন সেই ক্যাপ্টেন একাই।

আমরা অনলাইনগুলোতে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক নানান গ্ল্যামারাস উদ্যোক্তাদের অনেক গল্প পড়ি, এর বাইরে অন্য ব্যবসা-দুনিয়ার উদ্যোক্তাদেরও অনেক গল্প আছে।

কোরা থেকে সোলো-অন্ট্রাপ্রেনিউরসরা মাল্টি-মিলিয়ন ডলারের ব্যবসা কিভাবে করে তা নিয়ে কিছু পয়েন্টস পেলাম।

  • সেই সোলো-অন্ট্রাপ্রেনিউর লোকগুলো দারুণ সব অ্যামেইজিং লোকজন রিক্রুট করে। যে কোন স্টার্টআপ বা ব্যবসার শুরুর দিকে দারুণ লোক রিক্রুট করা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। গুগল কিংবা ফেসবুকের শুরুর দিকের রিক্রুটমেন্টের গল্প পড়লে সেই মাত্রা টের পাওয়া যায়।
  • সেই সোলো-অন্ট্রাপ্রেনিউর লোকগুলোর অপরিচিত কিন্তু কাজের মানুষদের সঙ্গে অনেক গল্প জুড়ে দেয়ার দারুণ এক অভ্যাস থাকে।
  • নিজের কোম্পানির খারাপদিনগুলোতে সেই সোলো-অন্ট্রাপ্রেনিউর লোকই নিজেকে নিজের বিপদ থেকে উদ্ধার করে নেন।
-- Stay cool. Embrace weird.
Total 2,120 views. Thank You for caring my happiness.

That 46 Rules of Genius

“Make a sketch, construct a model, or assemble a prototype. Then another. And another. With each attempt, you’ll reveal new possibilities for innovation. Your mind will talk to your hands, and your hands will talk to your mind. This dialogue is called generative thinking, and it happens only when you’re making something. It’s the active ingredient of design.”

I find the lines from The 46 Rules of Genius: An Innovator’s Guide to Creativity by Marty Neumeier. Marty is an awesome writer.

If you read this book you could get this types of lines as a rule for easy and positive lifestyle. I download this book for learning something about the Rules, the book is cool and easy going sense.

The_46_Rules_of_Genius

The book divided into four segments, Part 1, How can I innovate? This offers insightful guidance such as Feel before you think, See what’s not there, and Ask a bigger question. Rule #1 gives the paradoxical advice: Break the rules.

The first rule is, Break the Rules.

The last rule is, Create a new Rule.

Part 2, How should I work? offers down-to-earth tips on crafts.

In Part 3, How can I learn? contains practical advice including Do your own projects, Invest in your originality, and Develop an authentic style.

Finally, Part 4, How can I matter? deals with the deeper questions of a career in creativity, such as Overcommit to a mission, Build support methodically, and Become who you are.

After finishing the book you should realize like me,

“There is no great genius without a mixture of madness. —Aristotle”

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 642 views. Thank You for caring my happiness.

থিংকিং লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার

থিংকিং লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার, পরিব্রাজকের মত ভাবনা-কথাটা প্রথম শুনি আমি স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিজাইন থিংকিংয়ের উপর একটি ক্লাসের ভিজ্যুয়ালে। আইডিইওর জেনারেল ম্যানেজার টম কেলি একথা বলেন। নতুন কিছু উদ্ভাবনের জন্য সবাইকে পাঁচটা অভ্যাস করার পরামর্শ দেয়ার সময় প্রথম পরামর্শ হিসেবে তিনি এ কথা বলেন-থিংক লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার।

তো থিংকিং লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার মানে কি?

আমরা যখন বিদেশে ঘুরতে চাই, তখন কি করি? বিদেশে ঘুরতে গেলে সব কিছুই খুটিয়ে খুটিয়ে খেয়াল করি আমরা। আমাদের মস্তিষ্ক তখন যা দেখে তাকেই মনে রাখে, চিনে ফেলে, গল্পের ছবি হিসেবে মনে রাখে। অন্য দেশে গেলে মানুষ কিভাবে চা খায়, কফি খায়, জুতার ফিতা পরে তার সবই আমরা খেয়াল করি, মনে রাখি। আর নিজ এলাকায় সারাদিন কেমন জানি একটা ঘোরের মধ্যে চলি আমরা, বাসা-অফিস কিংবা বাসা-ক্লাস, একটা ঘোরের মধ্যে চলাই যেন সব। আর অন্য জায়গায় ঘুরতে গেলে প্রতিটি সেকেন্ডই যেন আমরা মনে রাখার চেষ্টা করি। এমনকি রাঙামাটি ঘুরতে গেলেও কিন্তু আমরা প্রতিটিই সেকেন্ডই মনে রাখি। ডিজাইন থিংকিং নিয়ে যারা পড়াশোনা করেন তারা থিংক লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার অভ্যাসটিকে গড়ে তোলেন সবার প্রথমেই।

কেন থিংকিং লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার?

নতুন আইডিয়া কিভাবে আসে, এই প্রশ্নের গোড়ায় থিংক লাইক ট্র্যাভেলার্স সেন্স ব্যবহার করলে নাকি দারুণ কাজ হয়। বিষয়টা অনেকটা এই রকম, নতুন আইডিয়ার বেশির ভাগই আমাদের চোখের সামনে খুব সরল ভাবে কোন না কোন সমস্যার মধ্যে লুকিয়ে থাকে। একঘেঁয়ে জীবনের কারণে সেই সমস্যাগুলো নিয়ে ভাবনার সময় নেই আমাদের, ভাবনা যেহেতু নেই সেহেতু নতুন আইডিয়াও নেই; আছে শুধু কাট-কপি-পেষ্ট। পরিব্রাজকদের মত ভাবার অভ্যাসে সাধারণ সমস্যাগুলো থেকেই অসাধারণ সব আইডিয়া চলে আসে। ট্যাক্সি সার্ভিস উবারের শুরুর গল্পটা কিন্তু এই ধরণেরই। প্যারিসে ট্যাক্সি না পেয়ে ট্র্যাভিস কালানিক তো উবার তৈরির ধারণা পেয়ে যান।

যে কারণে থিংক লাইক ট্র্যাভেলার্স?

টম কেলি থিংক লাইক অ্যা ট্র্যাভেলার্স থিমে ওরাল-বি টুথপেস্টের একটা গল্প শেয়ার করেছিলেন। ওরাল-বি বাচ্চাদের জন্য টুথব্রাশ ডিজাইনে কি নতুন আইডিয়া আসতে পারে তা নিয়ে বিপত্তিতে পড়েছিল। বাচ্চাদের জন্য ব্রাশ চিকন হবে কলমের মত, না ছোট হবে-কি হবে? শেষে, দেখা গেল বাচ্চাদের ব্রাশ আঁকারে বড় হলেই তা বাচ্চাদের ব্যবহার উপযোগি হয় বেশি। পাঁচ বছরের বাচ্চাদের দাঁতব্রাশের স্টাইল দেখে এই ধারণা মিলেছিল।
প্রতিদিন একই ভাবে ভাবনার কারণে আমরা মাথায় এমন একটা মেকানিজম ডেভলপ করি যা কিনা নতুন আইডিয়া খুঁজতে অনিচ্ছুক হয়। কিন্তু, আপনি যদি  থিংকিং লাইক ট্র্যাভেলার্স অভ্যাস আয়ত্ব করতে পারেন তাহলে প্রতিদিনকার সমস্যা থেকেই দারুণ থিংক খুঁজে পাবেন।

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 2,263 views. Thank You for caring my happiness.

20 ways to succeed in life

I got this ways from an edX user named Peeora. He typed this ways to the discussion board of BabsonX: BPET.ETAx The Entrepreneurial Mindset Course. The words are awesome. I also share this ways to my medium story board.

From Peeora:

In the past 3 years, I worked in the big company and I wasn’t happy at that moment. So I decide to quit my job and do what I love. It was a big decision and it changed my life. I found out that succeed in life doesn’t mean I have a lot of money, luxury life, high priority job position or whatever that make me look high class in this society. Succeed in life for me is having a balancing work and life and financially stable. So this is 20 way to succeed in life for me.

  1. Be happy
  2. Be positive and always forgive
  3. Be with a good friends
  4. Spend time with family
  5. Love yourself
  6. Know what you want and do what you love
  7. Live your life
  8. Be realistic
  9. Help people
  10. Sharing and give as much as you can
  11. Respectful
  12. Persevering
  13. Manage money and time
  14. Take good care of yourself
  15. Set your goals into action
  16. Believe in your abilities and in who you are
  17. Care about people more than money
  18. Care about animals and environment
  19. Open mind to everything because you’re not the center of the world
  20. Think before talk and act.
-- Stay cool. Embrace weird.
Total 570 views. Thank You for caring my happiness.

PowerPoint প্রেজেন্টেশনকে যেভাবে বোরিং করবেন

পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন দিয়ে আমরা কাস্টমার, বিজনেজ দুনিয়ার হোমড়া-চোমড়া, ক্লাস প্রেজেন্টেশনে কাঁপিয়ে দিতে চাই। যখন আমরা এমএস পাওয়ার পয়েন্ট দিয়ে প্রেজেন্টেশন বানাই, একেকটা স্লাইডকে মহাকাব্য বানিয়ে ফেলি। ইনফরমেশন, গ্রাফ, ভিডিও, সাউন্ড, অ্যানিমেশন-আরও কত কি দিয়ে স্লাইডকে জাহাজ বানিয়ে ফেলি। আসলে স্লাইড বানানোর সময় আমরা কেন জানি কখনও স্লাইডটা কার জন্য বানাচ্ছি, কাকে দেখাবো-তার কথা কোনও দিন ভাবার প্রয়োজন বোধ করি না। ভাবি না বলেই একেকটা স্লাইড শো অডিয়েন্সদের কাছে বস্তা-পচা মনে হয়, কেউ মনেই রাখে না স্লাইডে কি ছিল। আপনি ভেবে দেখুন তো, সর্বশেষ কোন স্লাইডের প্রেজেন্টেশন আপনার মনে আছে?
আমি এখন স্টিভ জবসের প্রেজেন্টেশন নিয়ে The Presentation Secrets of Steve Jobs: How to Be Insanely Great in Front of Any Audience বইটা পড়ছি। একটা স্লাইড, একটা মাত্র ওয়ার্ড আর স্টিভ জবসের ডেভিড বনাম গোলিয়াথ স্টাইলে গল্প বলার স্টাইলই অ্যাপলকে কত উঁচুতে নিয়ে গেছে তা বলে বোঝানো যাবে না। আপনি-আমরা হয়তো স্টিভ হতে পারবো না, কিন্তু স্টাইল কিন্তু একটু হলেও ফলো করে প্রেজেন্টেশনকে দারুণ করা যায়।
উহু, এই পোস্টটা পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনকে ভালো করার জন্য না। আমরা সবাই বিদ্যার জাহাজ, সবাই দারুণ প্রেজেন্টেশনে ওস্তাদ-আমরা নতুন করে জ্ঞান নিতে চাই না। এই পোস্টটা আসলে কিভাবে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনকে বোরিং করা যায় তা নিয়েই পোস্ট।

যত বেশি বুলেট, তত বেশি বোরিং প্রেজেন্টেশন

স্টিভ জবসের স্লাইডে বুলেট নামের কিছুই থাকতো না। বুলেট পয়েন্ট দিয়ে আসলে অডিয়েন্সকে ‘নোট নিচ্ছেন না কেন’ সেন্স দেয়া হয়। বুলেট পয়েন্ট যত বেশি ব্যবহার করা যাবে ততই বোরিং হয় প্রেজেন্টেশন।

অডিয়েন্সকে নোট নিতে চাপ দেয়া

আপনি নোট নিচ্ছেন না কেন, এই সেন্স স্লাইডে আর কথায় বার বার প্রকাশ করে প্রেজেন্টেশনকে বোরিং করে ফেলুন। স্টিভ জবসের প্রেজেন্টেশন ছিল গল্প টানার মতো, সিনেমার গল্প বলার স্টাইল। সিনেমা হল কিংবা অপেরা দেখার সময় আমরা কি নোট নেই। আমাদের প্রেজেন্টেশন তেমনই বোরিং করা উচিত, যেন অডিয়েন্স নোট নিতে বাধ্য হয়।

বেশি সময় নিয়ে প্রেজেন্টেশন দিন

সাধারণত বড় বড় স্পিকাররা ২ মিনিটেই প্রেজেন্টেশনের মূল থিম অডিয়েন্সকে বুঝিয়ে দিতে পারেন, সেজন্যই তাদের প্রেজেন্টেশন প্রানবন্ত হয়। প্রেজেন্টেশন বোরিং করার জন্য বেশি সময় নিন, টেনে টেনে কথা বলুন, মনোটোনে কথা বলুন-দেখবেন অডিয়েন্স বিরক্ত হয়ে গেছে।

রঙ-বেরঙের স্লাইড আর গ্রাফ ব্যবহার করুন

ভায়োলেট, পিংক, ব্লু-যত ডার্ক রং চোখের উপর চাপ তৈরি করে তা স্লাইড তৈরির সময় ব্যবহার করে অডিয়েন্সকে বিরক্ত করে তুলতে পারেন। বড় বড় ফন্ট, উদ্ভট অ্যানিমেশনেও পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনকে সেই মাত্রায় বোরিং করে তোলা যায়।

ভার নিয়ে প্রেজেন্টেশন দিন

খুব বোরিং স্টাইলে প্রেজেন্টেশন দিন। বডি ল্যাঙ্গুয়েজকে এমনভাবে উপস্থাপন করুন যেন আপনিই সব, দেখবেন অডিয়েন্স বোরিং হয়ে যাবে। আর এমন সব জার্গন ব্যবহার করবেন, যেন যা বলছেন সব অডিয়েন্সের মাথার অনেক উপর দিয়ে যায়। এসব করলে আপনি নিশ্চিত থাকুন, আপনি সেই ৯৮ ভাগ প্রেজেন্টারের দলে চলে আসবেন যারা অডিয়েন্সকে বোরিং করে তুলতে পারেন।

পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনকে বোরিং করতে চাইলে আরও যা খেয়াল রাখবেন:

  1. দ্রুত কথা বলুন।
  2. অডিয়েন্স কি চায়, কি নায় চায় তা কখনই কেয়ার করবেন না। তাদের হোয়াই শ্যুড আই কেয়ার প্রশ্নের উত্তর দিবেন না।
  3. নেভার মেক আই কনটাক্ট।
  4. গ্রাফ দিয়ে স্লাইড ভরে দিন।
  5. দ্যা মোর টেক্সট দ্যা বেটার!
  6. প্রতিটি অ্যালফাবেট, প্রতিটি বাক্য, প্রতিটি শব্দ, দাড়ি-কমা সব কিছুতে অ্যানিমেশন যোগ করুন।

আরও পড়ুন:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ২০১৭ সালে যা পড়তে পারেন।

ফিল নাইটের সেই সাত।

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 3,069 views. Thank You for caring my happiness.

Key elements of a brand by Nike

Jeff Bezos, the founder and CEO of Amazon.com said it best…”Your brand is what people say about you when you leave the room.”

That’s why before you even think about creative, logos, or marketing – you must have clarity on what your brand truly includes.

Here are some key elements of a brand by Nike which I endorse most:

1. Put Customer Interests First

Customers like great products and they like serious benefits. Customer is God.

2. Believe In the Product You Are Selling

As marketers, shouldn’t we believe in the product and the ideas we are selling?

3. Research brands within your industry niche.

You should never imitate exactly what the big brands are doing in your industry.

4. Form your brand’s business voice.

Your voice is dependent on your company mission, audience, and industry.

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 519 views. Thank You for caring my happiness.

প্রাণ কেন ঝালমুড়ি বিক্রি করবে?

যারা নব্বই দশকের শিশু-কিশোর তাদের মনে বাংলা সিনেমা নিয়ে অনেক স্মৃতি আছে। বাংলা সিনেমার শুরুতে ‘শ্রেষ্ঠাংশে’ নায়ক-নায়িকাসহ সব কুশীলবের নামের পরে ‘সম্পাদনা, গ্রন্থনা, চিত্রনাট্য, পরিচালনা ও প্রযোজনা’ ট্যাগের পরে ‘ছটুক আহমেদ’ বা ‘এহতেশাম’ বা ‘অমুক-তমুক’ থাকতো। একই লোক কত লোকের ভাত মেরে দিতো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারতো। একাই যে সব করা উচিত না তা বর্তমানের বাংলা সিনেমা দেখলেই বোঝা যায়।
এই কথা বলার কারন হচ্ছে, বড়দের কেন ছোটদের কাজ করতে হবে?

বড়দের কেন ছোটদের কাজ করতে হবে?

ধরা যাক, একটা অফিসের বস অফিসের সব কাজ করবে। ঝাড়ু দেয়া থেকে শুরু করে লিফটম্যানের কাজ-সবই করবে সে। তাহলে পরিস্থিতি কি দাঁড়াবে? অফিসের ক্লিনার, লিফটম্যান সবার বেতন সেই বসের পকেটেই যাবে। এই সমীকরণ খুব ছোট মনে হলেও বড় করে দেখলে একটু চমকাতে হবে মনে হয়। যে লোকটা ক্লিনারের কাজ করতে পারতো, সে বেকার থাকবে। যে লোকটা লিফটম্যান হতে পারতো সে চাকরি পাবে না। এই দুইজন যখন চাকরি পাবে না, তখন দুইজনের মত দুই লাখ মানুষ চাকরি পাবে না শুধু ওই বসের সব করার অংকের জন্য।
এই কাল্পনিক ঘটনার সঙ্গে আমাদের দেশের নিচের দিকের অর্থনীতির কথা তুলনা করা যায়। আগে পাড়ায় পাড়ায় ব্রেডের দোকান ছিল, কেকের ছোটখাটো দোকান ছিল। যেখানে ১০-১৫ জন মানুষ কাজ করতো। প্রাণসহ বেশ বড় বড় কোম্পানি এখন ব্রেড তৈরি করছে। ব্রেডের মতই ঝালমুড়ি, সিঙ্গারা, কেক, জ্যাম-জেলির ব্রেডও তৈরি করে বাজার সয়লাব করে ফেলছে বড় বড় কোম্পানিগুলো। এতে আসলে সেই মহল্লার ছোট দোকানগুলো কিন্তু হাওয়া হয়ে যেতে শুরু করেছে। আপনি প্রশ্ন করতে পারেন, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের সেই দোকানগুলোর দরকার নাই। এখন প্যাকেটের স্বাস্থ্যকর ব্রেড-কেকই ভালো। প্রাণ কিংবা অন্যসব বড়রা যখন ছোট ব্যবসায়ীদের পণ্য নিয়ে বাজার দখল করছে, তখন কিন্তু সেই মানুষগুলো চাকরিশূণ্য হচ্ছে। পাড়া-মহল্লার কারখানায় তৈরি ব্রেড-পাউরুটির স্বাস্থ্যমান উন্নত করার জন্য প্রশাসনের নজরদারী বাড়ানো যেতে পারে।
ব্র্যাক বিজনেজ স্কুলের শামীম এহসানুল হক স্যারের সঙ্গে কয়েকদিন আগে হঠাৎ করে এ নিয়ে ছোট আলোচনা করেছিলাম। ছোটদের বাঁচাতে রাষ্ট্রকেই নিয়ন্ত্রণ করা জরুরী। অস্ট্রেলিয়াতেও নাকি ছোট ব্যবসায়ীদের রক্ষার জন্য আইন আছে।
বড়দের সুযোগ করে দিতে যেয়ে ছোটদের শূণ্যে মিলিয়ে দেয়ার কোন যুক্তি কি আছে? যে লোকটা ঝালমুড়ি বিক্রি করে দিন কাটায়, প্রাণ তার বাজারও নষ্ট করে দিচ্ছে না? সেই ঝালমুড়িওয়ালার মুড়ির গুনগত মান নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে, তাই বলে তাকে বড় অর্থনীতির অংকে গায়েব করে দেয়ার যুক্তি কি আছে?

অর্থনীতির অংকে ছোটদের গায়েব করে দেয়ার যুক্তি কি আছে?

বিভিন্ন শপিংমলের সামনের দিকে আইসক্রিমওয়ালা দেখতে পাওয়া যায়। যারা বিভিন্ন কোম্পানির কাছ থেকে আইসক্রিম কিনে নিজেরা বিক্রি করে। একদশক আগেও হাতে তৈরি আইসক্রিমের চল থাকলেও এখন আইসক্রিমের গাড়ির মামারা কিন্তু সেই আইসক্রিম বিক্রি করে দিন চলে। কোম্পানিগুলো যদি নিজেই গাড়ি নামানো শুরু করে তাহলে কেমন দেখাবে বলেন তো? সেই মামারা কিন্তু বেকার হয়ে যাবে।

এই ক’দিন আগে গ্রামীণফোনের ইকমার্সে আসা নিয়ে অনেক কাটাকাটি দেখেছি। বিষয়টা কিন্তু সেই রকমই। বড়দের সব দিকে তাকানো ঠিক না মনে হয়।
আমাদের দেশের সামাজিক নিরাপত্তা মডেলটা অনেক দুর্বল। জিডিপি বাড়ার দিকে নজর সবার, সামাজিক নিরাপত্তার দিকে পলিসি মেকার, রিসার্চার-সবারই উদাসীনতা হতাশাই কিন্তু।

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 2,557 views. Thank You for caring my happiness.

Recommendations from storytelling experts

Entrepreneurs and visionaries are always pitching, sharing their vision and wander keeping in mind the end goal to secure subsidizing, make a deal, meet another contact, and work out their group. Strategies for success are come down to projectiles, and financials get to be remembered insights. Despite the fact that these components are indispensable critical to an effective pitch, the genuine power originates from recounting a convincing account story.

How might you transform a pitch into a connecting with the story that inspires your gathering of people to trust in your vision? What does it take to make a story sing? Here are a few proposals from narrating specialists:

Make “Your” Story
Each story needs a starting, center, and end that leaves the gathering of people educated about your energy and the move you’re making. Keep in mind that compassion is the thing that gets the gathering of people, so fabricate that feeling of sympathy as you recount the story. It’s regularly simplest when the storyteller/business visionary stars as the hero, however attempt to move the client into that part right off the bat in your pitch. It’s more relatable for the crowd, and more inclined to get them snared.

Advance Stories With Data
Stories and information can and ought to cooperate. Stories set the setting for a pitch and for your crowd’s involvement, so implant the information into the contribute a way that expands and backings the story line.

Relate to Your Customer
The best organizations are those that take care of a client’s issue, yet the arrangement doesn’t need to be ostentatious or refined to make for a decent story. In the event that you comprehend the torment focuses for your particular client and relate to them particularly, will probably motivate them to purchase.

Build up A Deep Bench!
Business visionaries need more than one go-to story, in light of the fact that no two pitching situations or groups of onlookers are the same. Here are a couple story lines that business people need to ace about their endeavors:

Beginning Story

This is your why, not the what or how. Why do you exist? What’s at your center?

Center Team

How did you meet each other? How were the associations between colleagues shaped? How could you find you required each other?

Clients and Stakeholders – Why would it be advisable for them to think about this wonder? Who else do you have to bring on your adventure?

Short, Medium, and Long – Crafting a succinct pitch is a test, yet the key components—why you’re included and why your clients are included—remain the same. This is best done in a story, simply make sure to rapidly move to the arrangement.

Energize Questions!
A decent question is superior to a splendid reply. The absolute most significant input for a business visionary can come as inquiries regarding their story.

 

I find this tips from a blog post of Babson College.

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 675 views. Thank You for caring my happiness.

9+1 Etiquette Rules

(Avoid the 9+1 word of the Headlines.)

Common Sense or Etiquette Rules For Our Times!

Scientist and Researcher as of late find that, Common  Sense would an uncommon human qualities in 2020s. In 2010s, we as of now find that the colossal astuteness on realistic is vanishing. Hashtag Common Sense should be a twitter trend for the survival of human civilization.

(I find some interest to type this post when as a Professional Fellowship Program’s participants I see Common Senseless behave from me, from my mates to all.)

There’s dependably a typical pressure between the amount we ought to take after our impulses and the amount we ought to respect social traditions. In any case, now and again like our own, the propensity is to tilt too far toward our impulses, since the traditions are changing quick and there’s no agreement about them in any case. There’s a hazard in that. You don’t know whom you may insult or how you may attack your own prosperity.

Here are some principles to help you, whether at an office lunch, the organization exercise center or the birthday gathering of your classmate.

You’ll see a shared factor in every one of them: Think about other individuals’ emotions first since it’s not about boosting your own comfort.

Messaging “Hello, I’m running 20 minutes late” is not as satisfactory as attempting to be on time.

On the off chance that you can’t go to an occasion that you’re formally welcomed to, don’t imagine that not RSVPing is the same as declining. Furthermore, don’t RSVP at last for an occasion that includes genuine arranging by the host.

Try not to roar on your Cellphones. Because you can’t hear the other individual well doesn’t mean the other individual can’t hear you well.

Kill the telephone at a supper party, and be at the time. You’re irritating no less than one individual who supposes you have no social aptitudes. At absolute minimum, kill the ringer so you can message and plot in relative stealth.

Keep in mind that in the event that you want to react promptly to each approaching content, you’ll lose more according to the individual who’s before you than you’ll pick up from the concealed individuals who are profiting from your productivity.

On the off chance that you come late to a practice class, don’t believe you’re qualified for scow your way to your most loved spot in the front. Furthermore, don’t square others from weight racks or other gear—simply venture back three feet and make everybody cheerful.

Keep individual discussions and contentions off interpersonal interaction destinations. The sensational airing of grievances is best done through SMS.

Direct your utilization of cameras and video at occasions. Make the most of your time with associates, loved ones in the present and save just a token for the future, instead of recording the whole thing to “remember” later in some “free” time that you’ll never really have.

Because you’re wearing earphones doesn’t mean you can block out from social civilities. For instance, in the event that you coincidentally cross somebody’s close to home space, apologize charitably.

Try not to be the first or second individual to chat on your mobile phone in an open space (like a transport or prepare). On the off chance that everybody’s doing it, you’re permitted some slack here.

Twofold watch that your earphones are connected to before gushing your most loved FM radio station.

Some Group Etiquette

1. Try not to use Mother Language in-front of. At the point when in a gathering you’re attempting to state something in your mom dialect, others individuals are giggling on you for your gibberish mentality!

2. Attempt to be a learner when you are voyaging. Try not to show mode off face, act like you know everything! In spite of the fact that you have a PHD on neurosciences, a transport driver knows something better then you!

3. Stay away from Social Network. You know why?

4. Continuously in grin! In the event that you confront a few issues, attempt to take care of issues in glad mode. On the off chance that your face are looking melancholy, might be you don’t have the foggiest idea about the force of joy.

5. ‘I’m exhausting’, don’t utilize this dialect to stop the adrenaline surge of the gathering!

6. Why don’t you Act like a kid? Learning new friends, exploring new books, always be in happy mode!

-- Stay cool. Embrace weird.
Total 578 views. Thank You for caring my happiness.